অনন্ত মূলের উপকারিতা - অনন্ত মূলের কার্যকারিতা


প্রিয় পাঠক এখন আমি আপনাদের সামনে এমন একটা গাছ নিয়ে আলোচনা করব যে গাছটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় গাছ যার অনেক কার্যকরিতা রয়েছে তো এই গাছ সম্পর্কে আপনি যদি আলোচনা পেতে চান তাহলে আমাদের সাথেই থাকুন তো দর্শক বলাই হয়নি সে গাছটি কি ওই গাছটি হলো অনন্তমূল 
অনন্ত মূলের উপকারিতা -  অনন্ত মূলের কার্যকারিতা

সূচিপত্রঃ অনন্ত মূলের উপকারিতা -  অনন্ত মূলের কার্যকারিতা

  • অনন্ত মূল এর প্রচলিত নাম
  • অনন্তমূল এর বৈজ্ঞানিক না
  • গাছের ব্যবহৃত অংশ
  • এর মধ্যে কি কি রাসায়নিক উপাদান রয়েছে
  • কোন কোন রোগে ব্যবহার করা যায়
  • সেবন করার পরিমাণ
  • সতর্কতা অবলম্বন

অনন্ত মূল গাছের প্রচলিত নাম

প্রিয় পাঠক আমরা সবাই জানি যে অনন্ত মূল গাছের প্রচলিত নাম হচ্ছে অনন্ত মূল এ গাছের ইংরেজি নাম হলো Indian sarsaparilla

অনন্ত মূল গাছের বৈজ্ঞানিক নাম

প্রিয় পাঠক বৃন্দ আমরা সবাই অনন্ত মূল গাছ সম্পর্কে জেনে থাকলেও এ গাছের বৈজ্ঞানিক নাম কি সে সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানিনা আজকে আমি আপনাদের কাছে বৈজ্ঞানিক নাম বলব অনন্তমূল গাছের বৈজ্ঞানিক নাম হল Hemidesmus indicus,(L) R.Br.

গাছের ব্যবহৃত অংশ

অনন্ত মূল গাছ সম্পর্কে আমরা জেনে থাকলেও এই গাছের কোন কোন অংশ ব্যবহার করা যায় সে সম্পর্কে আমরা জানিনা অনন্তমূল গাছের অনন্ত মূল গাছের পাতা সহ সমস্ত অংশে ব্যবহার করা যায়

এর মধ্যে কি কি রাসায়নিক উপাদান রয়েছে

প্রিয় পাঠক অনন্ত মূল গাছের মধ্যে অনেক প্রকার রসায়নিক উপাদান রয়েছে সেগুলো হলো বিটা এমাইরিন, বিটা আসিটেট, লুপে ওল , আলফা এমাইরিন, হেক্সা ট্রাই একোনটেন

কোন কোন রোগে ব্যবহার করা হয়

অনন্ত মূল গাছের অনেক উপকারিতা রয়েছে এর পাতা সহ গাছের সমস্ত অংশই বিভিন্ন রোগের ব্যবহার করা যায় যেমন অরুচি, হাত-পা জ্বালা কর্‌ হাঁপানি রোগে, প্রদা্‌ ব্রণ ও শোথ রোগে , খোশ পাঁচড়ায়

খোশ পাঁচ যেভাবে ব্যবহার করবেনঃ এক থেকে তিন গ্রাম মূল অথবা গাছের সমস্ত চূর্ণ দিনে দুইবার খাবার পর সেবন করলে ভালো উপকারিতা পাওয়া যায় এছাড়াও কুষ্ঠ রোগ শ্বেতী রোগ চুলকানি সহ সকল প্রকার চর্ম রোগে উপকার পাওয়া যায় অনন্ত মূল গাছ ব্যবহার করে

অরুচিতে যেভাবে ব্যবহার করবেনঃ অনন্তমূল গাছের পাতা সহ গাছ অল্প পানি দিয়ে ছেচে রস বের করতে হবে অথবা থেঁতো করে গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে রাতে ভিজিয়ে রাখার পর যে রসটা বের হবে সেটা সকালে খালি পেটে দুই থেকে তিন চা চামচ ব্যবহার করতে হবে তাহলে অরুচি থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে

হাত পা জ্বালা করায় যেভাবে ব্যবহার করবেনঃ তিন থেকে পাঁচ গ্রাম পরিমাণ গাছ পিষে রস বের করে নিতে হবে এবং সেখানে পানিসহ অল্প চিনি মিশিয়ে প্রত্যেক দিন দুইবার সেবন করতে হবে তাহলে হাত-পা জ্বালা করা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে

প্রদাহ, ব্রণ ও শোধরোগে যেভাবে ব্যবহার করবেনঃ পরিমাণ মতো মূল নিয়ে পেস্ট এর মত করে কুসুম গরম পানি মিশিয়ে আক্রান্ত স্থানে সেটার প্রলেপ দিয়ে দিতে হবে তাহলে এসব থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে

হাঁপানি রোগের জন্য যেভাবে ব্যবহার করবেনঃ পাতার চূর্ণ করে ২ গ্রাম মাত্রায় সেবন করতে হবে তাহলে হাঁপানি রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে

অন্যান্যঃ এ গাছের মূল যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে জ্বর নাশক ও ডায়রিয়া রোগের প্রতিষেধক হিসেবে এই গাছ ব্যবহার করা হয় এছাড়াও ক্ষুধা মন্দা হাঁপানি শ্বাসনালী প্রদাহ এবং রক্ত পরিষ্কারক হিসেবে এই গাছ অনেক বেশি কার্যকর

সেবন করার পরিমাণ

প্রিয় পাঠক আপনারা এতক্ষণ পর্যন্ত গাছের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জানতে পারলেন এখন এই গাছের সেবন করার পরিমাণ সম্পর্কে আপনাদের কে জানাবো যদি আপনারা সমস্ত গাছের চূর্ণ ব্যবহার করেন তাহলে ১-২ গ্রাম ব্যবহার করতে হবে; যদি সমস্ত গাছের রস ব্যবহার করেন তাহলে ২-৩ চা চামচ পর্যন্ত ব্যবহার করতে পারেন

সতর্কতা অবলম্বন

অনন্তমূল গাছের নির্দিষ্ট মাত্রায় সেবন করায় কোনরূপ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া এখনো দেখা যায়নি তবে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেবন করা উচিত

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url